পুষ্পের সৌন্দর্য

গিটার বাজিয়ে গান গাইছে, ছেলেটা কে রে

সদ্য বিদেশ থেকে ফিরেছে

বৈজ্ঞানিক, ক্লাব নতুন জয়েন করেছে

একটা বায়টেক কোম্পানি তে কাজ করে

বাব্বা, বৈজ্ঞাণিকদের কি হলো রে

কেন ভেবেছিলি, বিজ্ঞানী মানে

চোখে চশমা আঁটা, সাধু-সাধু ভাব, শুধু ল্যাব চেনে

গান গাইছে গিটার বাজিয়ে, নিতে অসুবিধে হচ্ছে

ভাবছিস তো, গান গাইছে, রিসার্চ করে কি করে

তোর ধারণা, সাইন্স শুধুমাত্র একটি যান্ত্রিক প্রচেষ্টা

নিয়ম ও পদ্ধতির ওপর তার বেশি জোরাজুরি

সায়েন্স করতে যে রকম সিরিয়াসনেসের দরকার হয়

গান গেয়ে তা সম্ভব নয়, তাই তো

জানিস তো, শিল্প বাদ দিয়ে, কোনো বিজ্ঞান হয় না

এক শিল্পী পুষ্পের সৌন্দর্য যেমন উপভোগ করতে পারে

বৈজ্ঞানিকও কী করতে পারে ?

আমার মনে হয়, বৈজ্ঞানিকের বাহ্যিক দৃষ্টির অভাব হয়

নীল আকাশে সে দেখতে পায়না রামধনুর রঙের বাহার

আমার মনে হয়, বৈজ্ঞানিকের সমবেদনায়

অন্তর্ভুক্ত পুষ্পের অন্তর্মন

সে দেখতে পায়, পুষ্পের বিভিন্ন কোষের সৌন্দর্য

বুঝতে চেষ্টা করে, এক কোষের আরেক কোষের সঙ্গে কথা বার্তা

জানতে চায়, কেন সে দেখতে পায়না

ফুলের রহস্যময় সৌন্দর্য, যেমন দেখতে পায় একটি ভ্রমর

যে কোনো আবিষ্কার, সর্বদাই অসম্পূর্ণ থেকে যায়

আবিষ্কারের সম্পূর্ণতার কথা ভেবে

বৈজ্ঞানিকের শিল্পের প্রয়োজন হয়

শিল্পের পূর্ণতার জন্যে কী

বৈজ্ঞানিক চিন্তনের প্রয়োজন হয়?