দিদিমার দোলনা

সকাল নটা থেকে বিকেল ছটা

শনি, রবি, আর ছুটির দিন বাদ দিয়ে

আমরা আঠ-দস জন থাকতাম

দিদিমার দোলনায়

দিদিমার কাছেই খেতাম

রামায়ন, মহাভারত, ছোটবেলার কত গল্প শুনতাম

ভাবতে মজা লাগে

দিদিমাও এক সময় ছোট ছিল

তখন দিদিমা খুব ছোট

পুতুল খেলার বয়েস

হটাৎ একদিন দিদিমাকে বাড়ি ঘর-দোর ছেড়ে

চলে আসতে হলো এক বন জঙ্গলে

'কেন' জিজ্ঞেস করাতে, দিদিমা বললো

কেন আবার, তোদের জন্যে

আমি না ঘর ছাড়লে

তোদের মা-বাবারা কাজে যেত কি করে

কাজে না গেলে কি হত দিদিমা

বারে, ওরা কাজে না গেলে

তোদের পেতাম কি করে

আমাদের পেলো কি দিদিমা

দুলাল, দিদিমার আলাল

তার সাত খুন মাফ

তাকে কিছু বলার জো ছিলনা কারুর

দুলাল কে ভালো বাসতো বলে দিদিমা

কম ভালো বাসতো আমাদের , তা কিন্তু নয়

দিদিমার আদরে, মা-বাবা'রা বলতেন

আমরা সবাই গোবর হয় যাচ্ছি

এক দিন আমরা সবাই হটাৎ বড় হয় গেলাম

বয়সে, বুদ্ধি-বিবেচনায়, নিজেকে গুছিয়ে নিতে

এদিকে ওদিকে ছিটিয়ে পড়লাম

কারুর খেয়াল রইলো না দিদিমার কথা

সেদিন হটাৎ দেখা দুলালের সাথে

দিদিমার কথা জিজ্ঞেস করতে

সে জানালো গত হয়েছেন দিদিমা বহু দিন

প্রয়োজন ফুরোলে কে আর মনে রাখে

দিদিমার দোলনার কথা